গ্রহরূপে পৃথিবী

মিশন জিওগ্রাফি ইন্ডিয়া: আমরা পৃথিবীতে বাস করি। আর এই পৃথিবী নামক গ্রহের চতুর্দিকে রয়েছে সীমাহীন ফাঁকা জায়গা যাকে আমরা মহাকাশ বলি। এই সীমাহীন মহাকাশের দিকে তাকালে দিনের বেলায় উজ্জ্বল সূর্যকে দেখা যায়। আর রাতের বেলায় অসংখ্য ছোট ছোট আলোকবিন্দু দেখা যায় –এদের জ্যোতিষ্ক বলে। এই সব জ্যোতিষ্কদের মধ্যে রয়েছে নীহারিকা, ধূমকেতু, উল্কা, নক্ষত্র, গ্রহ ও উপগ্রহ প্রভৃতি।

যে সব জ্যোতিষ্কদের নিজেদের আলো আছে তাদের নক্ষত্র বলে, আর যে সব জ্যোতিষ্কদের নিজেদের আলো নেই তাদের গ্রহ বলে। পৃথিবীর নিজস্ব আলো নেই তাই পৃথিবী একটি গ্রহ। পৃথিবীর কাছের উজ্জ্বলতম নক্ষত্রটি হল সূর্য। মহাকাশের কোটি কোটি নক্ষত্র নিয়ে গড়ে উঠেছে নক্ষত্রজগৎ (Galaxy)। আর এই নক্ষত্রজগৎ-এ সূর্যকে কেন্দ্র করে যে সব গ্রহ, উপগ্রহ, ধুমকেতু, উল্কা নির্দিষ্ট নিয়মে নির্দিষ্ট কক্ষপথে ঘুরে চলেছে তাদের নিয়ে গড়ে উঠেছে আমাদের ‘সৌরজগৎ’।

সৌরজগতে মোট ৮ টি গ্রহ আছে। সূর্য থেকে দুরত্ব অনুসারে গ্রহগুলি হল — বুধ, শুক্র, পৃথিবী, মঙ্গল, বৃহস্পতি, শনি, ইউরেনাস ও নেপচুন।দুরত্ব অনুসারে পৃথিবী সূর্যের তৃতীয় গ্রহ। পৃথিবী উপবৃত্তাকার পথে সূর্যকে কেন্দ্র করে পরিক্রমণ করে, তাই পৃথিবী থেকে সূর্যের দুরত্ব সব সময় সমান থাকে না। পৃথিবী থেকে সূর্যের মধ্যে গড় দুরত্ব থাকে প্রায় ১৫ কোটি কিমি।

পৃথিবীর আকৃতি প্রায় গোলাকার। এর নিরক্ষীয় ব্যাস ১২,৭৫৭ কিমি এবং মেরুব্যাস ১২,৭১৪ কিমি। প্রকৃত গড় ব্যাস ১২,৭৩৫.৫ কিমি.{(১২৭৫৭ + ১২৭১৪) / ২}। আর সাধারনত গড় ব্যাস ধরা হয় প্রায় ১২,৮০০ কিমি। সুতরাং পৃথিবীর গড় ব্যাসার্ধ ৬,৪০০ কিমি। আয়তন অনুসারে পৃথিবী সৌরজগতের পঞ্চম গ্রহ (বৃহস্পতি, শনি, ইউরেনাস ও নেপচুনের পর)। পৃথিবী পৃষ্ঠের ক্ষেত্রফল প্রায় ৫১ কোটি ৫৪ লক্ষ বর্গকিলোমিটার। পৃথিবীর গড় পরিধি প্রায় ৪০,০০০ কিমি (প্রকৃতপক্ষে ৪০,০৭৭ কিমি)। খ্রিষ্টের জন্মের প্রায় ২০০ বছরেরও বেশি আগে গ্রিক পন্ডিত এরাটোসথেনিস মিশরের আলেকজান্দ্রিয়া ও সিয়েন শহরে সূর্যরশ্মির পতন কোণের তারতম্য বিচার করে অবিশ্বাস্য কিন্তু প্রায় সঠিক ভাবে পৃথিবীর পরিধি নির্ণয় করেছিলেন।

পৃথিবীর আনুমানিক ওজন প্রায় ৫,৬৯৭×১০১৮ টন বা ৬ কোটি কোটি কোটি টন (৬ -এর পর ২১ টি শূন্য বসালে যে সংখ্যা হয়)। পৃথিবী মহাশূন্যে ভেসে থেকে তার অক্ষ বা মেরুদন্ডের উপর ভর করে নির্দিষ্ট গতিতে নির্দিষ্ট কক্ষপথে আবর্তন করতে করতে সূর্যকে পরিক্রমণ করে চলেছে। সূর্যকে একবার প্রদক্ষিণ করতে পৃথিবী গড়ে ৩৬৫ দিন সময় নেয়। রেডিওমেট্রিক ডেটিং সহ বিভিন্ন প্রমাণ অনুসারে, আজ থেকে প্রায় ৪৫৪ কোটি বছর পূর্বে পৃথিবীর সৃষ্টি হয়েছিল। পৃথিবী হল আমাদের সৌরজগৎ -এর একমাত্র গ্রহ, যেখানে জীবন রয়েছে।

পৃথিবী পৃষ্ঠের সবচেয়ে উঁচু অংশ ৮,৮৪৮ মিটার উঁচু (মাউন্ট এভারেস্ট, হিমালয় পর্বত) এবং সবচেয়ে নীচু অংশ ১১,০৩৫ মিটার নীচু (প্রশান্ত মহাসাগরের মারিয়ানা খাত)। সুতরাং ভূপৃষ্ঠের বন্ধুরতার পরিমাণ প্রায় ২০ কিলোমিটার।
পৃথিবীর একমাত্র প্রাকৃতিক উপগ্রহ হল চাঁদ। চাঁদের আয়তন পৃথিবীর ৫০ ভাগের ১ ভাগ। চাঁদের ব্যাস ৩,৪৭৬ কিমি। পৃথিবী থেকে চাঁদের দুরত্ব প্রায় ৩ লক্ষ ৮৪ হাজার ৪০০ কিমি। পৃথিবীর চারিদিকে ১ বার পরিক্রমণ করতে চাঁদের সময় লাগে ২৭ দিন ৮ ঘন্টা।

লেখকঃ- খুশিরাম মাহাতো (Director, Digital Education India)
তথ্যসূত্রঃ- Wikipedia
প্রথম প্রকাশ: ‘ভূগোলিকা’ ফেসবুক পেজ, প্রথম বর্ষপূর্তি-৩০/০৩/২০১৮

©Copyright Mission Geography India. 

এখান থেকে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মন্তব্য করুন

error: মিশন জিওগ্রাফি ইন্ডিয়া কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত